ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত নারী চিকিৎসক

সিলেট : ওসমানী হাসপাতালের শিক্ষানবীশ চিকিৎসক ডা. আফসানা তাসনিম মম। পূজোর ছুটিতে বাড়ি ফেরা বান্ধবী ডা. প্রিয়াংকা দত্তকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে তুলে দিতে শুক্রবার (৪ আগস্ট) রাতে সিলেট নগরীর কদমতলী এলাকার রেলওয়ে স্টেশনে যান। বান্ধবীকে স্টেশনে পৌঁছে রিকশায় করে ফেরার সময় স্টেশন এলাকায়ই তার পথরোধ করে এক ছিনতাইকারী।

এসময় মম’র ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নিতে চায় ছিনতাইকারী। এতে তিনি বাধা দিলে ছিতাইকারী তার মুখে ও হাতে ছুরি দিয়ে আঘাত করে। এসময় মম’র চিৎকারে পথচারীরা এগিয়ে এসে ছিনতাইকারীকে ঘিরে ধরেন। তবে কৌশলে সে পালিয়ে যায়। পরে মমকে উদ্ধার করে ওসমানী হাসপাতালে নিয়ে যান পথচারীরা।

শুক্রবার রাত ৯টায় এ ঘটনার পর আহত ডা. আফসানা তাসনিম মমকে ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ছুরিকাঘাতে তার মুখসহ জিহ্বা অনেকটা কেটে গেছে ও হাতে আঘাত লেগেছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এদিকে রাত সাড়ে ১২টার দিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে নগরীর আলি আমজদের ঘড়িঘরের পাশ থেকে রক্তামাখা ছুরিসহ ছিনতাইকারী নাজিমুল ইসলাম ওরফে রাজুকে (২৩) আটক করে। সে একাধিক ছিনতাই ও হত্যা মামলার আসামী বলে জানিয়েছেন দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল। রাজু কিশোরগঞ্জের ইটনা থানার মাতব্বর আলীর ছেলে।

এ ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। শনিবার দক্ষিণ সুরমা থানায় আহত ডা. মম বাদী হয়ে এই মামলা দায়ের করেন। এঘটনায় আটক রাজুকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে শনিবার (৫ আগস্ট) বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ। পুলিশের দাবি, রাজু পেশাদার ছিনতাইকারী।

দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল বলেন, আটক রাজু জিজ্ঞাসাবাদে ছিনতাইয়ের জন্য নারী চিকিৎসককে ছুরিকাঘাতের কথা স্বীকার করেছে। শনিবার তাকে আসামী করে দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে। এছাড়া সে  দক্ষিণ সুরমা থানার অন্য একটি মামলায় অভিযুক্ত হয়ে দীর্ঘ দিন হাজতবাস করে।