প্রতিবাদ আমার অলঙ্কার

হেলাল আহমেদ

প্রতিবাদ, আমার কথ্য ভাষা নয় অলঙ্কার

অষ্টাদশী যুবতীর মতো আমারও কণ্ঠের অলঙ্কার প্রতিবাদ

কেননা আমি বাঙালী।

পিঠ জুড়ে আমার লেলিহান চাবুকের ক্ষুধার্থ আঘাত দ্যাখে

আকাশ পাতাল ভাবা বেভুলা পথিক

ওসব আঘাত নয়, ঐতিহাসিক আলপনা!

কারণ আমি বাঙালী।

আমার পদতলে মৃতিকা জুড়ে ছিন্ন ভিন্ন মানুষের মাংসের দলা,

একদল মানুষের ক্ষুধার্থ হাড়,

রক্তের দাগ,

ওগুলো রক্ত নয়- কোনো এক বৈরি হাওয়ার দিনে

ঝড়ে পড়া নিষ্পাপ লাল ফুল।

শোনো, ভোরের আলোর মতো সদ্য ফোটা কাঙাল নবজাতক

আমার চিবুক জুড়ে ঠাই নিয়েছে চর্যাপদ

জিহ্বার আঘাতে আঘাতে প্রতিধ্বনিত হয় মঙ্গলকাব্য

আমার গোড়ালি জুড়ে হলুদ ধান কিংবা চাষা বঁধুর স্বপ্ন।

চোখের ভেতর প্রবহমান তেরোশত নদী,

কেননা আমি বাঙালী, আর তুমি গেঁয়ো বাঙাল সন্তা-

তোমার পরিচয় ভুলো না।

তুমি সেই পিতার উত্তরাধিকার্‌ যার একটি মাত্র আঙুলের ইশারায়

হাতে প্রাণ তোলে নিয়েছে সাড়ে সাত কোটি মানুষ

তুমি সেই মায়ের সন্তান, যার রক্ত, সম্ভ্রম, মর্যাদায় শৌর্যবান তুমি

তুমি সেই ভাইয়ের সিলসিলা, যার দেহের ওপর গড়ে ওঠেছে

কয়েকটি বর্ণ কিংবা একটি রাষ্ট্রীয় ভাষা

তোমার পরিচয় তুমি বাঙালী, কোনো মামুলি আদম সন্তান তুমি নও।

তোমার পরিচয় ভুলো না হে নতুন দিনের দোসর

তোমার উত্তরে পাহাড়, দক্ষিণে সাগর

তোমার হৃদয় জুড়ে কৃষকের হাসি

হাতের রেখায় পূর্বসুরীয় স্মৃতি

তোমার একটুও নাই ভয়

মনে রেখো শুধু বাঙালী তুমি, এই তবো পরিচয়।