রাধারমণ দত্ত

অনিমেষ বিজয় চৌধুরী

গৌড়ের অধিপতি নৃপতি লক্ষণ সেনের মন্ত্রী ছিলেন নারায়ণ দত্ত। নারায়ণ দত্তের পুত্র প্রসিদ্ধ বৈদ্যশাস্ত্র প্রণেতা চক্রপাণি দত্ত শুধুমাত্র বাংলার নয়, সমগ্র ভারতবষের্র গৌরব। তাঁর অমর কীর্তি ‘চক্রদত্ত’ গ্রন্থ প্রণয়ন চিকিৎসা বিজ্ঞানের ইতিহাসে যুগান্তকারী ঘটনা।

হযরত শাহজালালের শ্রীহট্ট বিজয়ের প্রায় শতবর্ষ আগে আনুমানিক ১২৮৪ খ্রীস্টাব্দে চক্রপাণি দত্ত শ্রীহট্টে পদার্পণ করেন। সেসময় নৃপতি গৌর গোবিন্দের (১৩৮৪ খ্রীস্টাব্দে হযরত শাহজালালের কাছে পরাজিত রাজা গোবিন্দ নয়) কঠিন ব্যধি উপশম করতে চক্রপাণি তিনপুত্রের সাথে শ্রীহট্ট আসেন।

রাজা গৌর গোবিন্দের কঠিন অসুখ হলে রাণীমা দক্ষিণ রাঢ়ের সপ্তগ্রাম নিবাসী বৈদ্যকুল শিরোমণি চক্রপাণি দত্তকে বিশেষ দূত মারফত খবর দেন যাতে তিনি রাজার চিকিৎসার ভার গ্রহণ করেন। কিন্তু চক্রপাণি সবিনয়ে তা প্রত্যাখান করলে রাণীমা পুনরায় একটা বাক্সে তার অঙ্গের সমস্ত অলংকার ভরে দিয়ে সেই বাক্স দূত মারফত পাঠালেন এই বলে যে, বৈদ্য মহাশয় যদি কৃপা করে আসেন তবেই তিনি এই অলংকার পুনরায় নিজ অঙ্গে ধারণ করবেন। রাণী মার বিশ্বাস চক্রপাণি রাজার চিকিৎসার ভার নিলেই তিনি নবজীবন ফিরে পাবেন। আর যদি চিকিৎসা না পেয়ে রাজার মৃত্যু হয় তবে রাণী সতী হবেন। অর্থাৎ রাজার সাথে সহমরণে যাবেন।

অগত্যা চক্রপাণি শ্রীহট্টে এসে রাজার চিকিৎসার ভার নিলেন এবং কিছুদিনের মধ্যেই গৌরগোবিন্দ সম্পর্ণ আরোগ্য লাভ করলেন। মহাত্মা চক্রপাণি দত্ত জলৌকা প্রয়োগ দ্বারা বহুবধি রোগের চিকিৎসা করতেন। এই বিশেষ ধরণের চিকিৎসায় মহারাজ সম্পূর্নরূপে আরোগ্য লাভ করেন।

রোগমুক্তির পর রাজা বৈদ্যরাজের প্রতি কৃতজ্ঞতায় তাঁকে নানাভাবে পুরস্কৃত করেন। রাজার মনের একান্ত বাসনা বৈদ্যরাজকে যেকোনও মূল্যে নিজ রাজ্যে প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু চক্রপাণি গঙ্গা ছেড়ে কচ্ছদেশে থাকতে চাইলেন না কিছুতেই।

এদিকে একটি বছর সম্পূর্ণ হতে চলেছে। আর নয়; এবার ফেরার সময় এসেছে। তবে রাজার অনুরোধ একেবারে ফেলতে পারলেন না চক্রপাণি। জ্যেষ্ঠপুত্র উমাপতিকে সঙ্গে নিয়ে দেশে ফিরলেন। আর দুই পুত্রকে শ্রীহট্টে বাস করার অনুমতি দিলেন। পরবর্তীকালে গৌর গোবিন্দের একান্ত ইচ্ছায় মধ্যমপুত্র মহীপতি দক্ষিণসুরে এবং কনিষ্টপুত্র মুকল গয়ারেতে প্রতিষ্ঠিত হন।

এই দত্ত বংশের এক শাখা সুনামগঞ্জের অন্তর্গত আতুয়াজান পরগণার কেশবপুর গ্রামে প্রতিষ্ঠিত হন। এই শাখায় রাধাগোবিন্দ দত্ত নামে এক কৃতী ব্যক্তি কুলপঞ্জিকা রচনা করেন। তিনি লিখেছেন যে, দক্ষিণ রাঢ়ের সপ্তগ্রামের গৌতম গোত্র প্রভব দত্তবংশী বিখ্যাত বৈদ্যরাজ চক্রপাণি দত্ত নৃপতি গৌরগোবিন্দের ব্যাধদিূর করেন। তার পুরস্কার স্বরূপ গৌরগোবিন্দ চক্রপাণি দত্তের মধ্যম পুত্রমহীপতি দত্তকে হাইল হাওর (হাসীল) পরে সপ্তগ্রামে স্থাপিত করেন। এই সাতগাঁও পরগণার চক্রদত্ত বংশীয় প্রভাকর দত্তকে প্রধানমন্ত্রী পদ দিয়ে আতুয়াজানের রাজা বিজয় সিংহের প্রপিতামহ দুর্ব্বার খাঁ কেশবপুর গ্রামে স্থাপিত করেন। প্রভাকর দত্তের বংশেই রাধামাধব নামে এক সুকবি জন্মগ্রহণ করেন।

রাধামাধব নানা শাস্ত্রে পন্ডিত ছিলেন। ‘শ্রী শ্রী মনসাপুরাণ’ ‘জয়দেব’ প্রভৃতি পাঁচালী তাঁর অমর কীর্তি। হাতে লেখা জয়দেব-এর গীতগোবিন্দের বাংলা পদ্যানুবাদ এখনও বর্তমান আছে। শ্রাবণ মাসে রাধামাধব লিখিত মনসাপুরাণ জগন্নাথপুররে ঘরে ঘরে এখনও গীত হয়। এছাড়াও তার রচিত ‘ভ্রমরগীতা’, ‘ভারতসাবিত্রী’, ‘গোবিন্দ ভোগের গান’, ‘ পদাবলী গান’, ‘ সখীসংবাদ গান’, ‘ ঝুলন গান’, ‘ রাস গান’ ও নানা বিষয়ক ‘ মেয়েলি গান’ উল্লেখযোগ্য।

তৎকালীন সুনামগঞ্জ মহকুমার জগন্নাথপুর থানার অধীন আতুয়াজান পরগনার কেশবপুর গ্রামে রাধামাধব ও সুবর্ণাদেবীর ঘরে ১২৪১ বঙ্গাব্দে (১৮৩৪ ইং) আবির্ভূত হন সাধক কবি রাধারমণ দত্ত। রাধারমণের দুই অগ্রজের নাম রাধানাথ ও রাধামোহন। কনিষ্ঠপুত্র রাধারমণের বয়স যখন মাত্র ১০ বছর তখন পিতা রাধামাধব দেহত্যাগ করেন। স্নেহশীলা এবং পরম ভক্তিমতী মাতা সুবর্ণাদেবী পুত্রদের শিক্ষাদীক্ষার ব্যবস্থায় ত্রুটি করেননি।

তাছাড়া পারিবারিক ঐতিহ্যের আনুকূল্যে এবং বিত্তশালী সম্ভ্রান্ত বংশে জন্ম নেয়ার সুবাদে রাধারমণ শৈশব থেকেই নানাবিধ শাস্ত্র অধ্যয়ন, কাব্য ও সঙ্গীত চর্চা ইত্যাদি যথাযথভাবেই লাভ করেছিলেন। রাধারমণের শান্ত স্বভাব ও মধুর ব্যবহার সকলকেই আকর্ষণ করত। তিনি ছিলেন স্বভাব কবি। পিতার কবি প্রতিভা তাঁর মধ্যে সঞ্চারিত হয়েছিল এবং বয়ঃবৃদ্ধির সাথে সাথে তা শতধারায় বিকশিত হয়।

১২৭৫ বঙ্গাব্দে চৌত্রিশ বছর বয়সে মৌলভীবাজারের নিকটবর্তী আদপাশা গ্রামে শ্রী চৈতন্যের অন্যতম পার্ষদ সেন শিবানন্দের বংশীয়  নন্দকুমার সেন অধিকারীর কন্যা গুণময়ী দেবীর সাথে রাধারমণ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। রাধারমণ ও গুণময়ী দেবীর ঘর আলো করে আসেন চার পুত্র রাসবিহারী, নদীয়াবিহারী, বিপিনবিহারী ও রসিকবিহারী।

স্ত্রী গুণময়ী দেবীকে রাধারমণ শুধু সহধর্মিণীরূপে নয়, দেবীজ্ঞানে ভক্তি করতেন। “প্রিয়েরে দেবতা করি/দেবতারে প্রিয়ে”- এই দার্শনিক তত্ত্বটি যেন বৈষ্ণব কবির অন্তরে বদ্ধমূল ছিল। সংসার জীবনের ভোগবাদ বিত্তশালী পরিবারের আদরের দুলাল রাধারমণের চিত্তকে আকর্ষণ করতে পারেনি বলেই মর্ত্যের প্রেমকে ঈশ্বর প্রেমের দিকে ধাবিত করতে পেরেছিলেন অবলীলায়।

তবুও বৈষ্ণব কবি এই মাটির পৃথিবীর মানুষ, সংসার জলধির দুঃখ-সুখের আবর্তন তাকেও উদ্বেলিত করেছে। সেই সময় কলেরা বঙ্গদেশে মাঝে মধ্যেই  মহামারী আকার ধারণ করত। ভয়াল এই রোগ রাধারমণের তিন পুত্রকে কেড়ে নেয় একে একে। কিছুদিনের মধ্যে প্রিয়তমা স্ত্রী গুণময়ী দেবীও দেহত্যাগ করলেন। একমাত্র জীবিত শিশুপুত্র বিপিন বিহারীকে নিয়ে রাধারমণ তাঁর জীবনের নতুন অধ্যায়ে প্রবশে করলেন। মৃত্যুশোক তাঁকে নতুন জ্ঞান, নতুন দৃষ্টি দিল। বৈরাগ্য তাঁর স্বভাবেই ছিল। এবার মায়ার বেড়ীও শিথিল হয়ে এলো।  কিছুকাল পর পুত্র বিপিনবিহারীকে মাতুতালয়ে স্থায়ীভাবে রেখে এলেন।

বৈষ্ণব কবির গুরু বরণের সময় উপস্থিত হলে পঞ্চাশ বছর বয়সে মৌলভীবাজারের অন্তর্গত ঢেউপাশা গ্রামের সাধক রঘুনাথ গোস্বামীর শিষ্যত্ব গ্রহণ করে রাধারমণ কঠোর সাধনায় নিমগ্ন হলেন। সংগীতের ফল্গুধারা এবার উদ্দাম গতি পেয়ে নতুনরূপে প্রবাহিত হতে লাগল।

সাধন জীবনের উপলব্ধি গুলোকে বৈষ্ণব কবি তাঁর অমিয় বাণী ও জাদুকরী সুরের রসায়নে  জারিত করে নবনব সৃষ্টির মধ্য দিয়ে প্রকাশ করতে লাগলেন অপূর্ব রসভঙ্গিমায়। নিজের রচনাকে সংরক্ষণ করে রাখার মন তাঁর ছিলনা। গান আসত বন্যার বেগের মতো। সে তুলনায় লেখনীর বেগ যে অতি মন্থর।

রাধারমনরে চরিত্রের আকর্ষণ আর অপার্থিব আনন্দের রসাস্বাদন নিমিত্ত ভক্তবৃন্দ সমবেত হতে শুরু করলেন কবির কুটির প্রাঙ্গণে। গ্রামীণ জনপদের নানা জাতি-ধর্ম-বর্ণ-গোত্র-সম্প্রদায়ের মানুষ ছুটে আসতেন কবির কাছে। ভিন দেশের মানুষ ও আসতেন। সেই যুগে জাত পাতের বেড়া অতিক্রম করে মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখার মন সকলের ছিলনা। তাই একান্নবর্তী পরিবারে থেকে কবিকে কিছুটা অসুবিধায় পড়তে হয়েছিল। শেষে বাড়ির পাশে নলুয়ার হাওরে তিনি আশ্রম প্রতিষ্ঠা করে স্থায়ীভাবে ওখানেই থাকতেন। রাতভর সংকীর্তণে সকলের অংশগ্রহণেও আর কোন বাধা আসত না। ক্রমে কবির গান ও নানা অলৌকিক কাহিনী লোকমুখে ছড়িয়ে পড়তে লাগল। ভাবের আবেশে ভক্তগণ যেন রাধারমণের মধ্যে গৌরাঙ্গ প্রভুকেই প্রত্যক্ষ করতে লাগলনে।

রাধারমণের দেহকান্তি ছিল দেবতুল্য। শরীরের আকৃতি মাঝারি ধরণের ও গায়ের রং ছিল দুধে আলতা। ধুতি আর সাদা ফতুয়া পরতেন। নলুয়ার হাওরে ওই আশ্রমেই তিনি সিদ্ধি লাভ করেন সহজিয়া বৈষ্ণব ধর্মের সাধনায়। বৈষ্ণব সাহিত্যে শান্ত, সখ্য, দাস্য, বাৎসল্য, মধুর প্রভৃতি নানা রসের পদ আমরা দেখি কিন্তু রাধারমণের পদগুলি মূলত উজ্জ্বল মধুর রসের খনি।

বৈষ্ণব কবির অন্তরঙ্গ শিষ্যদের মধ্যে অধর সূত্রধর ছিলেন বায়েন। ধ্যানমগ্ন রাধারমণ যখন কীর্তন আরম্ভ করতেন তখন অধর শ্রী খোল ধরতেন। অনেকের মতো তিনিও সাধক কবিকে ‘ঠাকুর’ বলে সম্বোধন করতেন। আসতেন পরমানন্দ সাহা, হরমণি মালাকার, ব্রহ্মানন্দ সাহা, পুত্র বিপিনবিহারী। আরও কত নাম না জানা ভক্ত। বিভোর হয়ে গাইতেন বলে লেখার অবকাশ পেতেন না। ভক্তগণ শুনে শুনেই সেই সহজ সুরের মন প্রাণ আকুল করা গান স্মৃতিতে ধরে রাখতেন ও পরে খাতায় লিখে নিতেন।

আদর্শ সাধক ও আাদর্শ গৃহী ছিলেন রাধারমণ। বিপিনবিহারীর প্রতি তাঁর কর্তব্যে তিনি অবহেলা করেননি। মৌলভীবাজারের নিকটবর্তী ভুজবলের কর বংশের কুঞ্জকুমারী দেবীর সাথে বিপিনবিহারী বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলে পুত্রের শ্বশুরালয়ে তিনি একাধিকবার গমন করেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত পিতা-পুত্রের যোগাযোগ অটুট ছিল। পৈতৃক সূত্রে বিপিন প্রচুর ভূ-সম্পত্তির অধিকারী হন পরবর্তীকালে।

বৈষ্ণব কবির সংগীতের অন্যতম অঙ্গ ছিল নৃত্য। বাঙালির নিজস্ব কোনো নৃত্যশৈলী হয়ত ক্ল্যাসিক্যাল মর্যাদা পায়নি। তথাপি রাধারমণ দত্তের অনন্য অবদান ধামাইল নৃত্য এই উপমহাদেশের একটি বিস্তীর্ণ অঞ্চলের মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা লাভ করেছে ধামাইল আজ বিশ্বের অনেক দেশেই সমাদৃত।  বঙ্গদেশে বৈষ্ণব পদের পাশাপাশি শাক্ত পদাবলীও রচিত হয়েছে অনেক কীর্তিমান সাধক কবিদের লেখনীতে।

রাধারমণ বৈষ্ণব কবি হলেও কোন সংকীর্ণতা তার কবি প্রতিভাকে আচ্ছন্ন করতে পারেনি। তিনি কিছু সংখ্যক শাক্তপদ রচনা করেন। কিছু  গান রচনা করেন মহাদেব বা ত্রিনাথ বন্দনা বিষয়ক যা এক শ্রেণীর শৈব সাধকের আদরণীয় হয়ে আছে আজও।

১৩২২ বঙ্গাব্দের ২৬ শে কার্তিক (১৯১৫ইং) শুক্রবার শুক্লা ষষ্ঠী তিথিতে ৮১ বছর বয়সে এই কবি সাধক দেহ ত্যাগ করেন। আজও কেশবপুরে কবির সমাধি মন্দিরে নিত্য সন্ধ্যারতি হয়। গীত হয় তাঁর রচতি গান।

ধ্যানমগ্ন অবস্থায় তিনি মুখেমুখে গান রচনা করতেন। যার মর্মস্পর্শী সুর, উচ্চাঙ্গের বাণী, ছন্দের বৈচিত্র্যতা, অলংকার প্রয়োগ সবখানইে ছিলো অসাধারণ নৈপুণ্য। যার ফলে তিরোধানের শতবর্ষ পরেও তাঁর গানের অপূর্ব নির্মাণশৈলী সহজ সুরের চলন আর ধামাইল নৃত্যগীত আমাদের মোহিত করে রেখেছে আপন মহিমায়।

লেখক:  রাধারমণ দত্তের প্রপৌত্রি শুক্লা চৌধুরীর কনিষ্ঠ পুত্র

  • খোলা জানালা বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত, মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। eyenews.news -এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা eyenews.news আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।